অনিয়ম ও দুর্নীতি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করায় ২ সাংবাদিককে হুমকি

  • বিশেষ প্রতিনিধি
  • প্রকাশ: ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১০:৪৮ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: ৬ বছর আগে
  • Print

বড়লেখা প্রতিনিধি:

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় দুই সাংবাদিককে হুমকি দিয়েছে একটি প্রভাবশালী মহল। হুমকিতে চরম নিরাপত্তহীনতায় ভুগছেন সাংবাদিকদ্বয়। গত ৭ ফ্রেব্রুয়ারি তাদের প্রকাশ্যে দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়া হয়।

হুমকি প্রাপ্তরা হলেন, ‘লাতু এক্সপ্রেস’র সম্পাদক দেলোয়ার হোসাইন ও সহকারী সম্পাদক সাংবাদিক সাদিক তাজিন। বড়লেখা উপজেলার শাহবাজপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অব্যবস্থাপনা নিয়ে সংবাদ প্রকাশের কারনেই কলেজ কর্তৃপক্ষ তাদের এই হুমকি প্রদান করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন সাংবাদিকদ্বয়।

ঘটনার আকস্মিকতায় চরম নিরাপত্তহীনতায় ভুগছেন সাংবাদিক দেলোয়ার হোসাইন ও সাদিক তাজিন। এই ঘটনায় দেলোয়ার হোসাইন থানায় জিডি করতে গেলে রহস্যজনক কারণে পুলিশ তা গ্রহণ করেনি।

এদিকে ‘লাতু এক্সপ্রেস’র সম্পাদক দেলোয়ার হোসাইন ও সহকারী সম্পাদক সাদিক তাজিনকে হুমকি দেওয়ার ঘটনায় ক্ষোভ ও উদ্বেগ প্রকাশ করে পৃথকভাবে বিবৃতি দিয়েছে বড়লেখা প্রেসক্লাব ও বড়লেখা অনলাইন প্রেসক্লাব।

জানা গেছে, দেলোয়ার হোসাইন ও সাদিক তাজিন সম্প্রতি ‘সাপ্তাহিক দেশ’ ও ‘লাতু এক্সপ্রেস’-এ শাহবাজপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অব্যবস্থাপনা নিয়ে ‘শাহবাজপুর উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজ : অনিয়ম ও দুর্নীতির কারখানা’ শীর্ষক একটি প্রতিবেদন করেন। এতে শাহবাজপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের গভর্ণিং বডির সভাপতি, উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম সুন্দর ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আহমদ জুবায়ের লিটন এবং প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ আব্দুল বাসিত দেলোয়ার হোসাইন ও সাদিক তাজিনের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। তারা সংবাদটি লাতু এক্সপ্রেস থেকে দ্রুত সরিয়ে ফেলার জন্য চাপ প্রয়োগ করতে থাকেন। কিন্তু তাদের প্রস্তাবে কাজ না হওয়ায়, সাংবাদিকদ্বয়কে প্রকাশ্যে দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়া হয়। পরে অজ্ঞাত একটি মুঠোফোন থেকে আবারও দেলোয়ার হোসাইনকে হুমকি দেওয়া হয়েছে।

‘লাতু এক্সপ্রেস’এর সম্পাদক দেলোয়ার হোসাইন বলেন, শাহবাজপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অব্যবস্থাপনা নিয়ে নিউজ করায় তারা (কলেজ কর্তৃপক্ষ) আমার ও আমার সহকর্মী সাদিক তাজিনের উপর ক্ষেপেছে। তারা নিউজটি দ্রুত সরিয়ে নিতে চাপ ও হুমকি ধামকি দিচ্ছে। আমরা তাদের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়ায় আমাদের প্রকাশ্যে দেখে নেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, আমার মুঠোফোনে অপরিচিত একটি নম্বর থেকে কল দিয়ে হুমকি দেওয়া হয়। এতে আমরা চরম নিরাপত্তহীনতায় ভুগছি। আতঙ্কে রয়েছে আমাদের পরিবারও। দেলোয়ার অভিযোগ করে বলেন, জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে থানায় সাধারণ ডায়রি (জিডি) করতে গিয়েছিলাম কিন্তু পুলিশ তা গ্রহণ করেনি।

দেলোয়ার আরও বলেন, এর আগে তিনি কলেজে শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে অনিয়মের নিউজ করেছিলেন। তখন থেকেই তারা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে লাতু এক্সপ্রেস; আমাদের সাহিত্যকর্ম ও সামাজিক কর্মকান্ডে ব্যাপক প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে যাচ্ছেন।

এদিকে ‘লাতু এক্সপ্রেস’র সম্পাদক দেলোয়ার হোসাইন ও সহকারী সম্পাদক সাদিক তাজিনকে হুমকি দেওয়ার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে পৃথকভাবে বিবৃতি দিয়েছেন বড়লেখা প্রেসক্লাব ও বড়লেখা অনলাইন প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ।

বড়লেখা প্রেসক্লাবের সভাপতি অসিত রঞ্জন দাস ও সাধারণ সম্পাদক গোপাল দত্ত এবং বড়লেখা অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি মিজানুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক এ.জে লাভলু পৃথক বিবৃতিতে উল্লেখ করেছেন, সংবাদ প্রকাশের জেরে শাহবাজপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ কর্তৃপক্ষ প্রকাশ্যে ‘লাতু এক্সপ্রেস’র সম্পাদক দেলোয়ার হোসাইন ও সহকারী সম্পাদক সাদিক তাজিনকে হুমকি দেওয়ার ঘটনায় আমরা অবাক হয়েছি। দুই সাংবাদিককে হুমকির ঘটনায় আমরাও উদ্বিগ্ন এবং উৎকণ্ঠিত। সাংবাদিকদের নিরাপত্তা ঝুঁকি ক্রমেই বাড়ছে। সাংবাদিকরা অনিয়ম, দুর্নীতি এবং স্বেচ্ছাচারিতা নিয়ে কথা বললেই এ অবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে।

বিবৃতিতে তারা আরও বলেন, রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ গণমাধ্যম সব সময়ই রাষ্ট্র ও সমাজের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। এজন্য সাংবাদিক ও গণমাধ্যমকর্মীদের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত হওয়া প্রয়োজন। তারা সাংবাদিকদের হুমকিদাতাদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

এদিকে হুমকির বিষয়ে জানতে শাহবাজপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল বাসিতের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তারা যেভাবে সংবাদ প্রকাশ করেছেন তা সত্য নয়। আর হুমকির অভিযোগও সঠিক নয়। কোনটা সত্য জানতে চাইলে তিনি মুঠোফোনের সংযোগটি বিচ্ছিন্ন করে দেন। পরে একাধিকবার কল করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

শাহবাজপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের গভর্ণিং বডির সভাপতি, উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম সুন্দরের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, দেলোয়ার হোসাইন ও সাদিক তাজিনকে কারা হুমকি দিয়েছে বিষয়টি আমি জানি না। তবে কলেজের কেউ হুমকি দিয়ে থাকলে তিনি বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখবেন।

বড়লেখা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইয়াছিনুল হক মুঠোফোনে বলেন, লাতু এক্সপ্রেস এর সম্পাদক দেলোয়ার হোসাইন ও সহকারী সম্পাদক সাদিক তাজিনকে কে বা কারা হুমকি দিয়েছেন বলে শুনেছি। তারা থানায় জিডি করতে এসেছিলেন। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও নিউজ